সোলার প্যানেল কী? সৌর প্যানেল কিভাবে কাজ করে বিস্তারিত ব্যাখ্যা?

সৌর প্যানেল সিস্টেমকে সৌর শক্তি, সৌর বিদ্যুৎ, সৌর প্যানেল শক্তি ইত্যাদিও বলা হয় এটি পরিবেশের বান্ধব, CO₂মুক্ত এবং সৌর শক্তি সিস্টেমের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উত্পাদিত হওয়ার সময় কোনও ক্ষতিকারক নির্গমন বাতাসে ছেড়ে দেওয়া হয় না।

সৌর শক্তি পৃথিবীর অন্যতম ধনী শক্তি সম্পদ, এটি বিভিন্নভাবে এবং পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির উত্স হিসাবে ব্যবহার করা
যেতে পারে এবং এটি আমাদের পরিচ্ছন্ন শক্তির ভবিষ্যতের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ ।

সৌর প্যানেলগুলি সূর্যের আলোকে শক্তিতে রূপান্তর করতে ব্যবহৃত হয়। সৌর প্যানেল সূর্যের আলোকে অবিচ্ছিন্ন প্রবাহকে বিদ্যুতের মধ্যে রূপান্তর করে শক্তি উত্পাদন করে এবং সূর্যালোককে বিদ্যুতে রূপান্তর করে এমন প্রক্রিয়াতে জ্বালানীর প্রয়োজন হয় না এবং এর কোনও পরিবর্তনশীল ব্যয় হয় না। সুতরাং, এর অর্থ সৌর শক্তি একটি নবায়নযোগ্য শক্তি।

সোলার প্যানেল কী?

সৌর প্যানেলগুলি ফটো-ভোল্টাইক সোলার মডিউল, সৌর প্লেট, সৌর পিভি মডিউল এবং সৌর শক্তি প্যানেল ইত্যাদি নামেও পরিচিত । ৬০ – ৭২ টি সৌর কোষের সমন্বয়ে সোলার প্যানেলগুলি তৈরি করা হয় যা সূর্যের আলোকে বিদ্যুতে রূপান্তর করে। এই সৌর কোষগুলি একটি সিলিকন নামক উপাদান থেকে তৈরি। সৌর প্যানেলগুলি বেশ কয়েকটি একক সৌর কোষ দ্বারা গঠিত যা সিলিকন, ফসফরাস (যা ঋ্নাতক চার্জ সরবরাহ করে) এবং বোরন (যা ধনাতক চার্জ সরবরাহ করে) এর স্তর দ্বারা গঠিত। সৌর প্যানেলগুলি সূযের আলোর ফোটনগুলি শোষণ করে এবং এর ফলে বৈদ্যুতিক প্রবাহ শুরু করে।

যদি আমরা একসাথে দুটি বা ততোধিক সৌর প্যানেল ইনস্টল করি এবং তাদেরকে সৌর ইনভার্টারের ও সৌর ব্যাটারি সাথে সংযুক্ত করি তাহলে এটি সৌর বিদ্যুত্ব্য বস্থা হবে যা আমরা ঘর, স্কুল, শিল্প ইত্যাদিতে ব্যবহার করতে পারবো। সোলার প্যানেলটি হলো সোলার সিস্টেমের মূল অংশ এবং সমস্ত সোলার সিস্টেমে (অন গ্রিড সোলার সিস্টেম , অফ গ্রিড সোলার সিস্টেম এবং হাইব্রিড গ্রিড সোলার সিস্টেম) একই ধরণের সৌর প্যানেল রয়েছে।

সৌর প্যানেল এর প্রকার

সৌর প্যানেলগুলি বিভিন্ন ধরণের এবং ক্ষমতাতে উদ্ভাবিত হয়। এই প্যানেলগুলির গঠন, ব্যবহৃত উপাদান ইত্যাদির ভিত্তিতে একে অপরের থেকে ভিন্ন হয় । সমস্ত ধরনের সৌর প্যানেল সম্পর্কে একটি সংক্ষিপ্ত জ্ঞান সরবরাহ করতে আমরা একে দুটি ভাগে ভাগ করছি ঃ

  • মনোক্রিস্টলাইন সৌর প্যানেল ।
  • পলিক্রিস্টালিন সোলার প্যানেল ।

মনোক্রিস্টলাইন সৌর প্যানেল : এই ধরণের প্যানেলগুলিকে “মনোক্রিস্টালাইন” বলা হয় যাতে বোঝানো হয় যে ব্যবহৃত সিলিকনটি একক-স্ফটিক সিলিকন। যেহেতু ঘরটি একটি একক স্ফটিকের সমন্বয়ে গঠিত, তাই বৈদ্যুতিনের প্রবাহ উত্পন্ন করে এমন বৈদ্যুতিনগুলিতে নড়াচড়ার আরও জায়গা রয়েছে। ফলস্বরূপ, মনোক্রিস্টালিন প্যানেলগুলি তাদের পলিক্রিস্টালিন অংশগুলির চেয়ে আরও দক্ষ (প্রায় 20-22%) এবং ফলস্বরূপ, আরও ব্যয়বহুল। এগুলি কালো এবং বর্ণের এবং মসৃণ নান্দনিকতা রয়েছে এবং ছায়া প্রবণ অঞ্চলগুলিতে ভাল অভিনয় করে।


পলিক্রিস্টালিন সোলার প্যানেল : সিলিকনের একক স্ফটিক ব্যবহারের পরিবর্তে নির্মাতারা সিলিকনের অনেকগুলি টুকরো একসাথে গলে প্যানেলের জন্য ওয়েফার তৈরি করে। কারণ প্রতিটি কক্ষে অনেক স্ফটিক রয়েছে, সেখানে ইলেক্ট্রনগুলির চলাচলের কম স্বাধীনতা রয়েছে। ফলস্বরূপ, পলিক্রিস্টালিন সোলার প্যানেলগুলির মনোক্রিস্টালাইন প্যানেলের চেয়ে কম দক্ষতার রেটিং (প্রায় 16-18%) রয়েছে তবে এটির দামও অনেক কম।


মানের উপর ভিত্তি করে –


স্তর 1: এগুলি শীর্ষ উত্পাদনকারীদের দ্বারা তৈরি সর্বোচ্চ মানের শিল্প গ্রেড প্যানেল। এ জাতীয় প্যানেলগুলি জুনরুফের মতো সৌর শিল্পে অগ্রণী ইপিসি সংস্থাগুলি দ্বারা ব্যবহৃত হয়।
স্তর 2: দুটি বিকল্পের তুলনায় সস্তা এবং কম দক্ষ। স্বল্প আয়ের পরিবারের শহরগুলিতে বেশি ব্যবহৃত হয়।

সৌর বিদ্যুৎ কেন্দ্রকে সৌর শক্তি ব্যবস্থা বলা হয় । সৌর প্যানেলের অ্যারে ব্যবহার করে সূর্যের আলোকে ডিসি বা এসি বিদ্যুতে রূপান্তর করে। মূলত, এখানে সৌর বিদ্যুৎ কেন্দ্র বা সোলার সিস্টেম ৩ প্রকারের রয়েছে।

  • অফ গ্রিড সোলার সিস্টেম
  • অন গ্রিড সোলার সিস্টেম
  • হাইব্রিড গ্রিড সোলার সিস্টেম।

অফ গ্রিড সোলার সিস্টেম

আপনার কাছে যদি কোন বিদ্যুতের সংযোগ না থাকে এবং আপনি বিদ্যুৎ সঞ্চয় করতে চান তবে অফ গ্রিড সোলার সিস্টেম আপনার জন্য প্রস্তাবিত।

অফ গ্রিড সোলার সিস্টেম ব্যাটারি ব্যাংক সহ একটি সিস্টেম । এতে সোলারের সাহায্যে ব্যাটারি চার্জ করা হয় এবং প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবহ্রত হয় ।

অফগ্রীড সোলার সিস্টেম এর জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ঃ

  • সোলার প্যানেল
  • একটি চার্জ কন্ট্রোলার
  • একটি ইনভার্টার এবং
  • ব্যাটারি ব্যাংক
  • সোলার প্যানেল
  • লোড

সোলার প্যানেল এমন একটি যন্ত্র যার সাহায্যে ইলেকট্রিসিটি উৎপন্ন হয়। এই উৎপাদিত ইলেকট্রিসিটি মূলত ডিসি হয়ে থাকে। বাজারে সাধারণত বিভিন্ন মানের সোলার প্যানেল পাওয়া যায়।

একটি চার্জ কন্ট্রোলার

এটা ব্যাটারির চার্জ কে কন্ট্রোল করে। ব্যাটারি ফুল চার্জ হয়ে গেলে চার্জ করা বন্ধ করে দেয় আবার চার্জ শেষ হয়ে গেলে ব্যাটারি থেকে লোডকে ডিস-কানেক্ট করে দেয়। এইভাবে ব্যাটারিকে সুরক্ষিত রাখে। এখানে পাচটি বাতি আছে যা দিয়ে বিভিন্ন নিদেশনা বোঝানো হয়।

ইনভার্টার

আমরা জানি যে সূর্য থেকে সোলার প্যানেলের মাধ্যমে উৎপাদিত ইলেকট্রিসিটি সাধারণত ডিসি হয়ে থাকে। এই ডিসি বিদ্যুৎ চার্জ কন্ট্রোলারের মাধ্যমে ব্যাটারি ব্যাংকে জমা হতে থাকে। কিন্তু আমরা বাসাবাড়িতে সাধারণত এসি লোড ব্যবহার করি ফলে এই ডিসি কারেন্টকে এসিতে কনভার্ট করার প্রয়োজন পরে যা আমরা ইনভার্টারের সাহায্যে করতে পারি।

ব্যাটারি ব্যাংক

ব্যাটারি ব্যাংক হলো অনেকগুলো ব্যাটারির সমষ্টি। এই ব্যাটারিগুলোকে সিরিজে বা প্যারালালে সংযোগ করা যায়। ভোল্টেজ বাড়াতে চাইলে ব্যাটারিগুলোকে সিরিজে সংযোগ দিতে হয় এবং কারেন্ট বাড়াতে চাইলে ব্যাটারিগুলোকে প্যারালালে সংযোগ দিতে হয়।

লোড

এটা হচ্ছে একটা লোড। এটা যেকোন কিছু হতে পারে যা আপনি আপনার বাসায় ব্যাবহার করবেন।

অনগ্রীড সিস্টেম

ব্যাটারি ছাড়া যতক্ষণ সূর্যের আলো আছে ততক্ষণ পুরো সিস্টেম চলার পদ্ধতির নাম অনগ্রিড।

অনগ্রীড সিস্টেমের জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি

  • সোলার প্যানেল
  • অনগ্রিড ইনভার্টার ও
  • এনার্জি মিটার
হাইব্রিড গ্রিড সোলার সিস্টেম।

হাইব্রিড গ্রিড সোলার সিস্টেম হলো অফ গ্রিড সোলার সিস্টেম ও অন গ্রিড সোলার সিস্টেম এর মিলিত রূপ। আপনি যদি একই সাথে বিদ্যুৎ সঞ্চয়ের পাশাপাশি রফতানির করতে চান তবে হাইব্রিড সিস্টেমটি আপনার পক্ষে সেরা । অর্থ্যাত আমরা বলতে পারি,অফ গ্রিড সোলার সিস্টেম + অন গ্রিড সোলার সিস্টেম = হাইব্রিড সোলার সিস্টেম ।


“হাইব্রিড সোলার সিস্টেম আপনাকে গ্রিড সৌর সিস্টেমের পাশাপাশি গ্রিড সৌরজগতের বৈশিষ্ট্য উভয়ই সরবরাহ করে you আপনি যদি রফতানির পাশাপাশি বিদ্যুৎ সঞ্চয় করতে চান তবে হাইব্রিড সিস্টেমটি আপনার পক্ষে সেরা” ” হাইব্রিড সোলার সিস্টেম বা পাওয়ার প্ল্যান্ট হ’ল উপরোক্ত সৌরজগতের সমন্বয় of

একটি সোলার প্যানেলের স্পেসিফিকেশন
  • Peak Power(PMP): এর মানে হচ্ছে এই সোলার প্যানেলটি সর্বোচ্চ ৫০ ওয়াট বিদ্যুৎ দিতে পারবে।
  • Open Circuit Voltage(VOC): সোলার প্যানেলে যখন কোন লোড দেওয়া হয় না তখন যে ভোল্টেজ পাওয়া যায় এটাকে Voc লেখা হয়ে থাকে।
  • Maximum Power Current(IMP): এর মানে হচ্ছে এটার সর্বোচ্চ কারেন্ট ২.২০ অ্যাম্পিয়ার ।
  • Maximum Power Voltage(VMP): এর মানে হচ্ছে এটার সর্বোচ্চ ভোল্টেজ ১৭.৮ ভোল্ট।
  • Short Circuit Current(ISC): যখন সিস্টেমে কোন কারনে শর্ট হয় তখন ঐ মূহুর্তে যে কারেন্ট পাওয়া যাবে ২.৩৫ অ্যাম্পিয়ার এটাই মূলত শর্ট সার্কিট কারেন্ট।
  • Wind Resistance: সোলার প্যানেলটি সর্বচ্চ ২৪০০PA বাতাসের বাধা সহ্য করতে পারবে।
  • Maximum System Voltage: যখন সোলার প্যানেলকে সিরিজে সংযুক্ত করা হয় তখন এর ভোল্টেজ Maximum System Voltage এর চেয়ে যেন বেশি না হয়। এখানে সর্বোচ্চ ভোল্টেজ ১০০০ । তার মানে (১০০০/১৭) = ৫৮ টা প্যানেল সিরিজে যুক্ত করা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *